ফরিদপুরকে ‘পদ্মা’ নামে বিভাগ ঘোষনা

ফরিদপুরকে ‘পদ্মা’ নামে বিভাগ ঘোষনা

বিভাগীয় সদর দপ্তর হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাওয়ার পর ফরিদপুর হবে দেশের ১৩তম সিটি কর্পোরেশন। কিন্তু বৃহত্তর ফরিদপুরকে পদ্মা বিভাগ নামে ঘোষণা দেয়ার আগেই মিষ্টি বিতরণ করা হয়েছে।

সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির (নিকার) বৈঠকে এ প্রস্তাব নীতিগতভাবে অনুমোদন দেয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত নিকারের বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম এ তথ্য জানান।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, ফরিদপুর সিটি কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব শর্তসাপেক্ষে চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে নিকার।

নীতিগত সিদ্ধান্ত হলো বিভাগীয় সদর দপ্তর হবে সিটি কর্পোরেশন। কিন্তু ফরিদপুর এখনো বিভাগীয় শহর হয়নি। যখন বিভাগীয় শহর হবে তখন থেকে ফরিদপুর সিটি কর্পোরেশন কার্যকর হবে।

নিকারের বৈঠকে ফরিদপুর সিটি কর্পোরেশন অনুমোদনের সংবাদ ফরিদপুরে পৌঁছালে হাজারো জনতা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপির বাসভবন এসে জড়ো হন।

বিভিন্ন স্লোগানের মাধ্যমে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে জনতা। ফরিদপুর সিটি কর্পোরেশন অনুমোদন পাওয়ার খবরে ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপিকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান তারা। এ সময় মিষ্টি বিতরণ করা হয়।

ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপি বলেন, নিকারের মিটিংয়ে ফরিদপুর সিটি কর্পোরেশনের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ফরিদপুর সিটি কর্পোরেশন অনুমোদন দেয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে প্রাণঢালা অভিনন্দন জানাই।

তিনি বলেন, মিটিংয়ে একই সঙ্গে ফরিদপুরকে পদ্মা বিভাগ করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। পদ্মা বিভাগের হেডকোয়ার্টার হবে ফরিদপুর। এ কারণে আমার নিজের পক্ষ থেকে এবং ফরিদপুরবাসীর পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ।

ফরিদপুরকে আমি উন্নয়নের মাধ্যমে দেশের অন্যতম জেলায় পরিণত করেছি। এর মধ্য দিয়ে ফরিদপুর আরেক ধাপ এগিয়ে গেলো। স্বাধীনতার পর ফরিদপুর তার যোগ্য মর্যাদায় আসীন হলো।

ফরিদপুর সিটি কর্পোরেশন অনুমোদন পাওয়ায় সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সংগঠনের আয়োজনে বিশাল আনন্দ র‌্যালি বের করা হয়।

র‌্যালিটি জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয় থেকে শুরু হয়ে মুজিব সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে গিয়ে শেষ হয়। পরে জনতার মাঝে মিষ্টি বিতরণ করা হয়।

ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী বরকত ইবনে সালাম বলেন, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপির প্রচেষ্টায় প্রধানমন্ত্রী ফরিদপুরবাসীর আরেকটি প্রাণের দাবি পূরণ করেছেন। এজন্য শহরবাসী প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞ।

এখানের মানুষ আজীবন প্রধানমন্ত্রীকে হৃদয়ে ধরে রাখবে। ফরিদপুরের কারিগর খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপির অবদান ফরিদপুরবাসী চিরদিন মনে রাখবে।

ফরিদপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি মো. ইমতিয়াজ হাসান রুবেল বলেন, ফরিদপুর শহর এখন উন্নয়নের নতুন যুগে প্রবেশ করল। ভবিষ্যতে এ শহর হবে দেশের অন্যতম একটি আধুনিক ও নাগরিক সুবিধাসংবলিত শহর।

ফরিদপুরকে তার যোগ্য মর্যাদায় আসীন করার জন্য ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ঝর্ণা হাসান বলেন, ফরিদপুরের উন্নয়নের রূপকার ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপির প্রচেষ্টায় আজ ফরিদপুর সিটি কর্পোরেশনের অনুমোদন পেল।

এজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানাই। ফরিদপুরবাসীর জন্য আজ বড় খুশির দিন, আনন্দের দিন।

ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার নাজমুল ইসলাম লেভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপির কাছে আমরা ফরিদপুরবাসী কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। ফরিদপুরবাসী আরও একধাপ এগিয়ে গেল।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2019 banglareport71.com